Friday, 12 January 2018

ছেলেটা রয়েছে অন্ধকার এক রুমে। একদম একা। গুনাহ থেকে কেবল এক ক্লিক দূরে।ছেলেটা রয়েছে অন্ধকার এক রুমে। একদম একা। গুনাহ থেকে কেবল এক ক্লিক দূরে।

ছেলেটা রয়েছে অন্ধকার এক রুমে। একদম একা। গুনাহ থেকে কেবল এক ক্লিক দূরে।


ছেলেটা রয়েছে অন্ধকার এক রুমে। একদম একা। গুনাহ থেকে কেবল এক ক্লিক দূরে। সে চাইলেই পারে গুনাহের সাগরে ডুবে যেতে। মাতাল হাওয়ায় নিজেকে হারিয়ে ফেলতে। গুনাহের সময়টুকু হয়তো খুব উপভোগ করা যাবে। কিন্তু এরপরের অনুভূতিটা কেমন?
লজ্জার, অনুশোচনার, অপমানের। হয়তো কেউ দেখেনি। দেখে ফেললে অপমান করতো। ‘ভণ্ড’ বলে গালি দিতো। কিন্তু অন্যের কাছে অপমানিত হওয়া যতোটা লজ্জার তার চেয়ে তো অনেক বেশী লজ্জার নিজের কাছে প্রতিনিয়ত অপমানিত হওয়া। এ অপমান সবসময় নিজেকে ঘিরে ধরে। ঘুমানো যায় না। মানুষের সাথে কথা বলতে লজ্জা লাগে, আল্লাহ্‌র সামনে দাঁড়াতে লজ্জা লাগে।
ছেলেটার কান গরম হয়ে এলো। সে অনুভব করল নাক দিয়ে গরম শ্বাস বের হয়ে আসছে। স্ক্রিন থেকে সে চোখ সরিয়ে ফেলল। অনুভব করল চোখ থেকে অবিরাম ধারায় অশ্রু গড়িয়ে পড়ছে। বারবার মনে হতে লাগলো ইমাম ইবনুল কায়্যিম রাহিমাহুল্লাহ্'র বিখ্যাত উক্তিটা -
“গুনাহকে অবশ্যই ধুতে হয়। হয় দুনিয়াতে অনুশোচনার কান্না দ্বারা নতুবা আখিরাতে জাহান্নামের আগুন দ্বারা।”
আমরা আল্লাহ্‌র কাছে দু’আ করি উনি যেন আমাদের গুনাহ থেকে রক্ষা করেন। হঠাৎ করে যদি গুনাহের দরজা খুলে যায় আর আমরা তাতে প্রবেশ করি তবে যাতে অনুশোচনার অশ্রু দিয়ে সেই গুনাহকে মুছে ফেলতে পারি। ইহুদীরা বলতো, “জাহান্নামের আগুন আমাদেরকে স্পর্শ করবে না। আর যদি করেও, তবে কেবল কিছু দিনের জন্যে করবে।” [২:৮০]
আমরাতো জাহান্নামে থাকতে চাই না। একটা দিনের জন্যেও না। একটু সময়ের জন্যেও না। ফিতনার এই সময়ে হয়তো গুনাহ হয়ে যাবে। আমরা আল্লাহ্‌র কাছে চাই, তিনি যাতে আমাদের গুনাহের কারণে আমাদের অন্তরকে মৃত না করে দেন। আমাদের চোখ দিয়ে যেন অনবরত অনুশোচনার কান্না ঝরে।
আগুন নেভানো কান্না..............!!

#Islam for better Life


No comments:

Post a Comment